কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু। সোমবার ঢাকা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হাইকোর্টের দেওয়া সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ ৫৬ শতাংশ কোটা পুনর্বহালের আদেশের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন। কোটা পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত বাতিল করে ২০১৮ সালের পরিপত্র বহাল রাখার আগ পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

এদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে কলাভবন, মল চত্বর, ভিসি চত্বর ও টিএসসি হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু

সমাবেশে শিক্ষার্থীরা ‘সংবিধানের ও মুক্তিযুদ্ধের মূলকথা, সুযোগের সমতা’, ‘ কোটা প্রথা বাতিল চাই বাতিল চাই’, ‘ কোটা না মেধা, মেধা মেধা’, ‘মুক্তিযুদ্ধের বাংলায়, বৈষম্যের ঠাঁই নাই’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকেন।

 

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু

 

শিক্ষার্থীরা বলেন, বর্তমানে শুধু প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে কোটার পাশাপাশি তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির চাকরিতেও গলাকাটা পোষ্য কোটা দেওয়া হয়েছে। একটি পরিবারের একজন যেখানে চাকরিতে রয়েছে, সেখানে অন্যদেরও সেই সুবিধা দেওয়া হয়েছে। অথচ আমার আপনার বাবা-মা যারা শ্রমজীবী, কৃষক, কর্মজীবী খেটে খাওয়া মানুষ তাদেরকে এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।

ঢাবি শিক্ষার্থীদের চার দফা দাবিগুলো হচ্ছে- ২০১৮ সালে ঘোষিত সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল ও মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র বহাল রাখা, ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের পরিপত্র বহাল সাপেক্ষে কমিশন গঠন করে দ্রুত সময়ের মধ্যে সরকারি চাকরিতে (সব গ্রেডে) অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাদ দেওয়া।

 

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু

 

এছাড়া সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না এবং কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্যপদগুলোতে মেধা অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া ও দুর্নীতিমুক্ত-নিরপেক্ষ-মেধাভিত্তিক আমলাতন্ত্র নিশ্চিত করতে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া।

এদিন জবি শিক্ষার্থীরা একই দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন। পরবর্তীতে মিছিল নিয়ে পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজার হয়ে বাহাদুর শাহ পার্ক প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা শহীদ রফিক ভবনের সামনে গিয়ে সমাবেশে পরিণত হয়। জবি শিক্ষার্থীরাও অনুরূপভাবে কোটা সংক্রান্ত চারটি দাবি জানান সমাবেশে।

 

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন শুরু

 

প্রসঙ্গত, গত ৫ জুন সরকারি দপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত বা আধাস্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন করপোরেশনে চাকরিতে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে (নবম থেকে ১৩তম গ্রেড) মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলসংক্রান্ত পরিপত্র অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। সেদিন রাতেই এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। পরদিন থেকে দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে।

আরও দেখুনঃ