ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী। আঁচল ফাউন্ডেশনের এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। শুক্রবার অনলাইনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ‘বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির কারণ’ শিরোনামে জরিপের তথ্য তুলে ধরা হয়।

জরিপে বলা হয়, মোট শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫৫ শতাংশ তাদের ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। বিভিন্ন সময়ে নিজেকে অন্যদের সঙ্গে তুলনা করার কারণে হতাশায় ভুগছেন ১৬ দশমিক ২ শতাংশ শিক্ষার্থী। এ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা নিয়ে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ, হল বা আবাসিক পরিবেশ নিয়ে ৯ শতাংশ, সহপাঠী বা শিক্ষকের মাধ্যমে বুলিংয়ের কারণে ৫ দশমিক ৩ শতাংশ শিক্ষার্থী হতাশাগ্রস্ত। আর এ সবগুলো কারণের জন্য ১ দশমিক ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী এবং ৩ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী অন্যান্য কারণে হতাশায় ভুগছেন। সূত্র: আজকের পত্রিকা

ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশার উপসর্গ অনুভব করার হার বেশি। এর মধ্যে ৮৩ দশমিক ৪ শতাংশ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বিষণ্নতার উপসর্গগুলোর মুখোমুখি হয়েছেন। বাকি ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ জানিয়েছেন তাদের মাঝে হতাশার উপসর্গ দেখা যায়নি।

 

ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

 

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশার চিত্র তুলনামূলক কম। ৭৯ দশমিক ৯ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তারা হতাশার উপসর্গগুলো অনুভব করেছেন। অন্যদিকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬১ দশমিক ৩ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছেন, তারা এই ধরনের উপসর্গের মধ্য দিয়ে গেছেন।

 

ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

 

জরিপে অংশগ্রহণকারী মোট শিক্ষার্থীর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের হয়রানির শিকার হয়েছেন ৩১.১ শতাংশ শিক্ষার্থী। যার মাঝে বুলিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৫.৯ শতাংশ, র‌্যাগিংয়ের শিকার হয়েছেন ১৩.৪ শতাংশ, যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন ১.৮ শতাংশ এবং কোনো ধরনের হয়রানির শিকার হননি ৬৮.৯ শতাংশ। সূত্র: দ্য ডেইলি ক্যাম্পাস

 

ভবিষ্যৎ পেশাজীবন নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন ৫৫ শতাংশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

 

গত ১৫-৩০ মে দেশের ৮৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ হাজার ৫৭০ জন শিক্ষার্থী এ জরিপে অংশ নেন।

আরও দেখুনঃ